1. admin@birbangla24.com : birbangla24.com :
  2. tipuisd@gmail.com : বীর বাংলা ডেক্সঃ : বীর বাংলা ডেক্সঃ
সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ০৪:৫৮ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
ঢাকায় সড়ক দুর্ঘটনায় ঈশ্বরদীর সুজন নিহত ঈশ্বরদী পৌরবাসীর উপর করের বোঝা চাপান হবে না– মেয়র ইছাহক আলী মালিথা ঈশ্বরদীর চরগড়গড়ির খাইরুল হত্যা মামলার প্রধান আসামী মজনু গ্রেফতার ঈশ্বরদী নাগরিক পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সভা অনুষ্ঠিত ঈশ্বরদী জমজম হাসপাতালে ঝাড়ুদার দিয়ে প্রসব করানোর অভিযোগ | নবজাতকের মৃত্যু ঈশ্বরদীতে ছুরিকাঘাতে স্কুলছাত্র আহতের প্রতিবাদে সহপাঠীদের মানববন্ধন ঈশ্বরদীতে সহপাঠীর ছুরিকাঘাতে স্কুল ছাত্র আহত ঈশ্বরদী ইপিজেড এলাকায় স্বামীর ছুরিকাঘাতে স্ত্রী খুন | স্বামী আটক ঈশ্বরদীতে সাপের কামড়ে কৃষকের মৃত্যু আজ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের ৪৩ তম মৃত্যুবার্ষিকী

নজর কাড়বে “পাগলা রাজা”

প্রতিবেদকের নাম:
  • প্রকাশিত: শনিবার, ২৪ জুন, ২০২৩
  • ৩৬ বার পড়া হয়েছে

বীর বাংলা নিউজঃ

এবার কোরবানী ঈদে সবার নজর কাড়বে পাগলা রাজা। গায়ের রং কুচকুচে কালো, উচ্চতা ৬ ফুট, লম্বা ১০ ফুট। ৫ বছর ধরে দেশীয় খাবার খাইয়ে লালন পালন করা হয়েছে। শখ করে তার নাম রাখা হয়েছে “পাবনার পাগলা রাজা”। ঈদকে সামনে রেখে গরুটির দাম হাঁকা হচ্ছে ১৭ লাখ টাকা। এই গরুটির মালিক পাবনা জেলার ঈশ্বরদী উপজেলার সুলতানপুর গ্রামের রেজাউল করিম। ২০১১ সাল থেকে তিনি গরুর খামার করা শুরু করেন। ৩ বছর আগে তিনি ৩০ মন ওজনের একটি গরু বিক্রি করেছেন। খামারী রেজাউল করিম জানান, ৫ বছট আগে ঈশ্বরদীর অরণকোলা হাটনথেকে ৫৭ হাজার ৮০০ টাকায় হলষ্টেইন ফিজিয়ান জাতের বাছুর কিনে লালন পালন করেন তিনি। স্বাস্থ্যকর পরিবেশে রেখে সম্পুর্ণ প্রাকৃতিক ও দেশীয় খাবার খাইয়ে তাকে লালন পালন করা হয়। গরুটি শান্ত শিষ্ট দেখে খামারী রেজাউলসহ বাড়ীর সবাই তাকে পাগলা পাগলা বলে ডাকতো। এক পর্যায়ে তার নাম রাখা হয় “পাবনার পাগলা রাজা”। রেজাউল আরও জানান, ভুট্টা, জব, কাচা ঘাস, কলাইয়ের ভুষি, গমের ভুষি, ধানের খড় খাইয়ে মোটা তাজা করা হয় গরুটিকে। কোন কেমিক্যাল বা মেডিসিন প্রয়োগ করা হয়নি। রেজাউলের স্ত্রী বলেন, দীর্ঘ দিন ধরে লালন পালন করতে গিয়ে গরুটির প্রতি মায়া জন্মে গেছে। ছাড়তে ইচ্ছা করছে না,কিন্তু ধরে তো রাখা যাবে না। বিক্রি করতে হবে। এদিকে এতো বড় গরু দেখতে রেজাউলের বাড়ীতে ভিড় করছে আশেপাশের মানুষ। মানিক নামের এক দর্শনার্থী জানান, রেজাউলের বাড়ীতে বড় গরু আছে তাই দেখতে এলাম। এতো বড় গরু কখনও দেখিনি।

প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডা. আম মামুন জানান, জেলার অনেক খামারী ঈদকে সামনে রেখে গরু মোটাতাজা করছেন। এবার খামারীরা লাভবান হবেন। খামারী রেহাউলও লাভবান হবেন বলে আশা করেন তিনি। এ বছর পাবনা জেলায় গরুর চাহিদা ৩ লাখ আর গরু আছে ৬ লাখ।

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত