1. admin@birbangla24.com : birbangla24.com :
  2. tipuisd@gmail.com : বীর বাংলা ডেক্সঃ : বীর বাংলা ডেক্সঃ
মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ০৩:১০ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
ঈশ্বরদীতে বঙ্গবন্ধু (অনুর্ধ-১৭) বালক ফুটবল টুর্নামেন্ট উদ্বোধন ঈশ্বরদীতে বিনা মূল্যে স্বাস্থ সেবা প্রদান ঢাকায় সড়ক দুর্ঘটনায় ঈশ্বরদীর সুজন নিহত ঈশ্বরদী পৌরবাসীর উপর করের বোঝা চাপান হবে না– মেয়র ইছাহক আলী মালিথা ঈশ্বরদীর চরগড়গড়ির খাইরুল হত্যা মামলার প্রধান আসামী মজনু গ্রেফতার ঈশ্বরদী নাগরিক পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সভা অনুষ্ঠিত ঈশ্বরদী জমজম হাসপাতালে ঝাড়ুদার দিয়ে প্রসব করানোর অভিযোগ | নবজাতকের মৃত্যু ঈশ্বরদীতে ছুরিকাঘাতে স্কুলছাত্র আহতের প্রতিবাদে সহপাঠীদের মানববন্ধন ঈশ্বরদীতে সহপাঠীর ছুরিকাঘাতে স্কুল ছাত্র আহত ঈশ্বরদী ইপিজেড এলাকায় স্বামীর ছুরিকাঘাতে স্ত্রী খুন | স্বামী আটক

ঈশ্বরদী পৌর মেয়র ইছাহক আলী মালিথা টিকা কার্যক্রম পর্যবেক্ষণ

বীর বাংলা নিউজ
  • প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ৭ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ২১৫ বার পড়া হয়েছে

করোনা ভাইরাসের প্রতিষেধক করোনা গণ ভ্যাকসিন প্রদান কার্যক্রম পর্যবেক্ষণ করেন ঈশ্বরদী পৌর মেয়র ইছাহক আলী মালিথা।  আজ মঙ্গলবার সকালে ঈশ্বরদী পৌর এলাকার ১ নং ওয়ার্ডের মৌবাড়ীয়া প্রাথমিক বিদ্যালয়, ২ নং ওয়ার্ডের পশ্চিমটেংরী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং ৩ নং ওয়ার্ডের পিয়ারাখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে স্বশরীরে উপস্থিত হয়ে টিকা প্রদান ঘুরে দেখেন।

এ সময় পৌর সচিব জহুরুল ইসলাম ও কাউন্সিলর মনিরুল ইসলাম সাবু তার সাথে ছিলেন। প্রতিটি ওয়ার্ডে ২ শত জন করে ৩ টি ওয়ার্ডে ৬ শত জনসহ ঈশ্বরদী উপজেলার প্রতি ইউনিয়নে ৬ শত জন করে ৪ হাজার ২ শত এবং পৌর এলাকায় ৬ শত মোট ৪ হাজার ৮ শত জনকে আজ করোনা ভাইরাসে ভ্যাকসিনের ২ য় ডোজ প্রদান করা হয়।

এ ব্যপারে পৌর মেয়র বলেন,  পৌর ও ইউনিয়ন পর্যায়ে করোনার গণ টিকা প্রদান অব্যাহত থাকা উচিৎ। এতে করে সরকারী হাসপাতালের উপর চাপ কমবে। সেই সাথে এই স্বাস্থ্য সেবা জনগনের দোর গোড়ায় পৌছে দেওয়া যাবে।

ঈশ্বরদী উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আসমা খাঁন জানান, আজ ঈশ্বরদী পৌর ও ইউনিয়ন পর্যায়ে ৪ হাজার ৮ জনকে গণ টিকার ২য় ডোজ প্রদান করা হয়। এ ছাড়া নিবন্ধনের মাধ্যমে নিয়নিত হাসপাতালে করোনার টিকা প্রদান করা হচ্ছে। সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী আমরা কাজ করছি।

পৌর সচিব জহুরুল ইসলাম বলেন, আমাদের দক্ষ স্বাস্থ্য কর্মী রয়েছে প্রতি ওয়ার্ডে প্রতিদিন যদি ৫০ জনকে টিকা দেওয়া হয় তা হলে মাসে একটি পৌর এলাকায় ১০ হাজার জনকে টিকা দেওয়া সম্ভব। এতে করে অল্প সময়ের মধ্যে সকলকে টিকার আওতায় আনা যাবে।

টিকা নিতে আসা বৃদ্ধা রহিমা খাতুন বলেন, হাসপাতালে অনকে ভিড় হয়। বাড়ীর কাছের স্কুলে টিকা দিলে টিকা নেওয়া আমাদের জন্য সহজ হবে। তাই গণ টিকা কার্যক্রম চালু রাখার দাবী জানান তিনি।

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত